1. admin@banglatv21.com : admin :
  2. info@banglatv21.com : bangla tv : bangla tv
সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৫:২৭ অপরাহ্ন

তাঁরা নজর কাড়েন সবার

  • Update Time : বুধবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৪ Time View

রূপে ও গুনে এই শহরের ‘আইকন’ তাঁরা। টেলিভিশন খুললে তাঁদের পরিবেশিত খবর সবাইকে মুগ্ধ করে। মেধার দ্বীপ্তিতে তাঁরা উজ্জ্বল। সৌন্দর্যে তাঁরা অনন্যা। তাঁরা হলেন শামসুন্নাহার নিম্মি, নুপুর চৌধুরী, সাদিয়া খন্দকার ও তৌহিদা সুমী। দিনভর সংবাদ সংগ্রহ ও পরিবেশনার ব্যস্ততার মধ্যেও কীভাবে তাঁরা নিজেদের সুন্দর রাখেন—এই প্রশ্ন অনেকের। বাংলাদেশে থাকতেই ছোট পর্দার উজ্জ্বল এ মুখগুলো নিউইয়র্কের বাংলাদেশি কমিউনিটিতেও নিজেদের প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন, যা তাঁদের এই শহরের সবার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে নিয়ে এসেছে। নিউইয়র্কের বাংলাদেশি এই চার নারী উপস্থাপকের সৌন্দর্য ভাবনা জানতেই আজকের এ আয়োজন—

নুপুর চৌধুরী

‘যা করবে সেটি খুব ভালো করে করবে, মনোযোগ দিয়ে করবে’, মায়ের এই একটি কথাই দীর্ঘ ১৮-১৯ বছরের ক্যারিয়ারে নুপুর চৌধুরীর প্রেরণার উৎস। মা নাচ করতেন, লেখালেখি করতেন। বাবা দুটি সংবাদপত্রের সম্পাদক ও মালিক। তাই গান-নাচের মধ্য দিয়েই নুপুরের বড় হয়ে ওঠা। গান শেখা, কবিতা আবৃত্তি, বিতর্ক কিংবা গল্পের বই পড়াটা ছিল পারিবারিক সংস্কৃতিরই অংশ। নুপুরের ময়মনসিংহ শিল্পকলায় গান শেখাটাও হয়েছে মায়ের অনুপ্রেরণায়। ছোটবেলায় কবিতা আবৃত্তি ও বিতর্কের সময় উচ্চারণ ঠিক করার জন্য মা মেয়েকে একটা ছোট ‘হ্যান্ড ক্যাসেট প্লেয়ার’ কিনে দিয়েছিলেন নিজের উচ্চারণ শোনার জন্য, যেন নিজে নিজেই উচ্চারণ ঠিক করে নিতে পারে। প্রথম স্টেজে ওঠা কিংবা মাইক্রোফোনের সামনে আসাও ছোটবেলাতেই। স্কুলে থাকতেই বাংলাদেশ টেলিভিশনের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। একই সময়ে বাবার পত্রিকাতে হয় লেখালেখির হাতেখড়িও। ক্লাস সেভেনে পড়াকালেই ভোরের কাগজে ছাপা হয় তাঁর প্রথম লেখা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর নানা সুযোগ হাতছানি দিতে থাকে। লেখাপড়ায় ভালো ছিলেন বলে মা চাইতেন না সাংস্কৃতিক জগৎ কিংবা গণমাধ্যম তাঁর ক্যারিয়ার হোক। তাই অনেকটা মায়ের আগ্রহেই নুপুরের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে পড়াশোনা করা। ইচ্ছে কূটনীতিক হওয়া। তবে যে প্রেম, যে নেশা রক্তের সঙ্গে মিশে থাকে, তা থেকে দূরে থাকা তো যায় না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ২০০১ সালেই বিটিভিতে উপস্থাপনা শুরু করেন নুপুর। এরপর রেডিও টুডে। বাংলাদেশের প্রথম ২৪ ঘণ্টার সংবাদ চ্যানেল সিএসবি, চ্যানেল ওয়ান, ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনে কাজ করার সুযোগ মেলে শিক্ষার্থী থাকাকালেই। রেডিও টুডের মাধ্যমে ভারতেও উপস্থাপনার ট্রেনিং নেওয়ার সুযোগ মেলে। সিএসবিতে থাকা অবস্থায় বিবিসি ও আলজারিরার সাংবাদিকদের কাছ থেকে নিয়েছেন প্রশিক্ষণ। এখন টিবিএন২৪ টেলিভিশনে চিফ নিউজ এডিটর ও সিনিয়র প্রেজেন্টার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এখানেও শিখছেন অনেক কিছু। উপস্থাপনা কিংবা সংবাদ পাঠে বাহ্যিক সৌন্দর্যের প্রয়োজনীয়তা না থাকলেও চলে বলে মনে করেন নুপুর। তাঁর মতে, এটা তৃতীয় বিশ্বের মানসিকতা, যার ঘোর বিরোধী তিনি। সুন্দর মুখশ্রী নয় নুপুরের পক্ষপাত ব্যক্তিত্ব ও মেধার প্রতি। সৌন্দর্যের প্রতি যত্নশীল বেশি হওয়ার কারণেই অনেকেই ঝরে যান। তাই নিজেকে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে নিজের মেধাকে শাণিত করতে হবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে। একজন উপস্থাপক মেধার মাধ্যমেই নিজের একটি আইডেনটিটি গড়ে নিতে পারে। সুন্দর মুখশ্রী হয়তো সাময়িক বিনোদন দিচ্ছে মাত্র। একটি রাজনৈতিক টক শোতে নিজের উপস্থাপনা কেমন হবে, আবার একটি গানের অনুষ্ঠানে নিজেকে কীভাবে তুলে ধরবে সেটি নিয়ে আলাদা প্রস্তুতি থাকে নুপুরের। এ প্রতিটি পর্যায়ের জন্য সময়ের প্রতিটি বদলের জন্য নিজের মধ্যে তাঁর ভাঙা-গড়া চলতেই থাকে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Categories

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত